Thursday, September 16, 2021
Home > আন্তর্জাতিক > অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন নিয়ে ইউরোপে বিতর্ক : জার্মান মিডিয়া রিপোর্ট

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন নিয়ে ইউরোপে বিতর্ক : জার্মান মিডিয়া রিপোর্ট

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন নিয়ে ইউরোপে বিতর্ক৷ জার্মান মিডিয়ার রিপোর্ট, ৬৫ বছরের বেশি বয়সিদের ক্ষেত্রে এই টিকা ৮ শতাংশ কার্যকর৷

অ্যাস্ট্রাজেনেকা অবশ্য এই রিপোর্ট উড়িয়ে দিয়ে জানিয়েছে, তাদের ভ্যাকসিন নিরাপদ ও কার্যকর। তাদের দাবি, গত নভেম্বরে তারা সব তথ্য দ্য ল্যানসেটে প্রকাশ করেছে৷ সেখানে দেখা যাচ্ছে, দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর একশ শতাংশ ক্ষেত্রে বয়স্কদের দেহেও অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে৷ অ্যাস্ট্রাজেনেকার দাবি, সংবাদপত্রের রিপোর্ট ভুল৷ ডিডাব্লিউকে লিখিতভাবে সংস্থার মুখপাত্র জানিয়েছেন, যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন কমিটি এবং জাতীয় মেডিসিন রেগুলেটার বয়স্কদের এই ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য অনুমোদন দিয়েছে৷

জার্মানির দুইটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা মাত্র ৮ শতাংশ৷ দুইটি সংবাদপত্রই জার্মান সরকারের অনামা সূত্রকে উদ্ধৃত করে খবরটা করেছে৷ হ্যান্ডলসব্যাট-এর রিপোর্ট বলেছে, বয়স্কদের মধ্যে এই ভ্যাকসিন ৮ শতাংশ কার্যকর৷ আর বিল্ডের রিপোর্ট জানাচ্ছে, তা ১০ শতাংশেরও কম কার্যকর৷

দুইটি সংবাদপত্রের রিপোর্টে বলা হয়েছে, জার্মান সরকারের পরিকল্পনা ছিল, যাঁরা সেন্টারে আসতে পারবেন না, তাঁদের বাড়িতে গিয়ে এই ভ্যাকসিন দেয়া৷ কারণ, এই ভ্যাকসিন নিয়ে যাওয়া ও রাখা সহজ। ফাইজার-বায়োনটেকের মতো মাইনাস ৭০ ডিগ্রিতে রাখতে হয় না৷ জার্মানির সরকারি কর্মকর্তারা মনে করছেন, ইউরোপের মেডিসিন এজেন্সি(ইএমএ) বয়স্কদের উপর এই ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমতি সম্ভবত দেবে না৷

এই রিপোর্ট এমন একটা সময়ে এসেছে, যখন অ্যাস্ট্রাজেনেকা ইউরোপে প্রতিশ্রুতি মতো ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে পারছে না৷ তারা অনেক কম ভ্যাকসিন দিয়েছে ইউরোপকে৷ এ নিয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসছেন ইইউ-র হেলথ অ্যান্ড ফুড সেফটির কর্তারা৷ কবে তারা প্রতিশ্রুতিমতো ভ্যাকসিন দিতে পারবে তা নিয়েই আলোচনা হবে৷

গত মাসে অ্যাস্ট্রাজেনেকা তাদের ভ্যাকসিন ইউরোপে চালুর অনুমোদন চেয়েছিল৷ জার্মানির স্বাস্থ্য মন্ত্রকের মুখপাত্র জানিয়েছেন, আগামী সপ্তাহে সম্ভবত এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবে ইএমএ৷

জিএইচ/এসজি (রয়টার্স)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *